স্বেচ্ছাসেবকলীগ মহিলা বিষয়ক সম্পাদিকার দাপটে নাজেহাল জনগণ ও সংবাদকর্মী! - Ekushey Media bangla newspaper

Breaking News

Home Top Ad

এইখানেই আপনার বা প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ: 01915-392400

নিউজের উপরে বিজ্ঞাপন

Sunday, 8 December 2019

স্বেচ্ছাসেবকলীগ মহিলা বিষয়ক সম্পাদিকার দাপটে নাজেহাল জনগণ ও সংবাদকর্মী!


একুশে মিডিয়া, রংপুর প্রতিনিধি:>>>
আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, আমরা সুশৃঙ্খল আওয়ামীলীগ চাই, সু-সংগঠিত আওয়ামীলীগ চাই। বিশৃঙ্খল আওয়ামীলীগ চাই না। সুবিধাবাদীদের দলে দেখতে চাই না। অতিথি পাখির মত নেতার জায়গা আওয়ামীলীগে হবে না। ত্যাগী কর্মীরাই হবে দলের কান্ডারী। বক্তব্যটি শতভাগ খাঁটি, সুন্দর ও গ্রহণযোগ্য!
কিন্তু বাস্তবে দেখা যাচ্ছে তার উল্টোটা। মহিলা বিষয়ক সম্পাদক কে.এম. মাজেহারুন নাহার পল্লবী, সেচ্ছাসেবক লীগ, বনানী থানা ঢাকা, ভিজিটিংক কার্ডে পাওয়া গেল। তার বাসা লালমনিরহাট জেলা। রংপুর নগরীর নূরপুর এলাকার মিলন হিজরার বোন রানুর বাসায় তিনি প্রায় আসা যাওয়া করেন। ঐ বাসাতে বিভিন্ন অপকর্ম ও অসামাজিক কাজ সংঘটিত হয় নিত্যদিন।
এ অপকর্মের সাথে জড়িত এই মহিলা বিষয়ক সম্পাদক কে.এম মাজেহারুন নাহার পল্লবী। গত ৩ ডিসেম্বর ২০১৯ গোপন সূত্রে জানা গেছে যে, রংপুর নগরীর হাছানা বাজার এলাকার এক তরুণীকে তার আপন ফুফা ফুসলিয়ে সুকৌশলে ডেকে নিয়ে যায় মিলন হিজরার বোন রানুর বাসায়। কিছুক্ষণ পর তরুণীটি বুঝতে পারে তার সাথে খারাপ কিছু হতে চলেছে। তখন সে তাৎক্ষণিকভাবে তার বন্ধুদের ম্যাসেজ করে জানায় ঐ মহিলার নেতৃত্বে তার সাথে খারাপ কিছু হতে চলেছে।
এ আশংকায় তরুণীটি তার বন্ধুদের সাহায্য চায় এবং বিষয়টি তারা আবার গণমাধ্যম কর্মীকে জানায়, ঘটনা স্থলে সবাই উপস্থিত হলে, ঘটনার সত্যতা মিলে। আর তখনই উদ্ধার করতে যাওয়া ব্যক্তিদের উপর হামলা শুরু করে ঐ মহিলা বিষয়ক সম্পাদক কে.এম মাজেহারুন নাহার পল্লবী ও তার সাঙ্গ পাঙ্গরা। শুরু হয় উদ্ধারকারীদের উপর বেধড়ক মারপিট। এমন অবস্থা দেখে গণমাধ্যম কর্মী সাথে সাথেই ৯৯৯ এ কল করে পুলিশের সাহায্য চায়, পুলিশ এসে তাদেরকে উদ্ধার করে।
গণমাধ্যম কর্মীকে ফোন করতে দেখতে পাওয়ায় ক্ষমতার অপব্যবহারকারী মহিলা কে.এম মাজেহারুন নাহার পল্লবী। সঙ্গে সঙ্গে তিনি ও তার দলবল গণমাধ্যম কর্মীর উপর চড়াও হয় গণমাধ্যম কর্মীর উপর, সংবাদ কর্মীর গলার চেইন ছিনিয়ে নেয় ও হাতে থাকা মোবাইলে যে ছবি ধারণ করা হয়েছে তা বিনষ্ট করার জন্য মোবাইল ফোন ভেঙ্গে ফেলে। তাকে শারীরিকভাবেও লাঞ্ছিত করে এবং অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজ করে বলে, আমাকে চিনিস? আমি ছাত্রলীগের প্রেসিডেন্ট রেজওয়ানুল হক শোভন চৌধুরী ফুফি। গণমাধ্যম কর্মীকে পুঁতে রাখার মতো ক্ষমতা আমার আছে। 
বিশ্বস্ত সূত্রে জানা গেছে, ঐ মহিলা নেত্রী অসামাজিক কর্মকাণ্ড ও মাদক ব্যবসার সাথে জড়িত। তার স্বার্থে আঘাত লাগার কারণে তিনি এমনটি ঘটিয়েছে বলে জানা গেছে।






একুশে মিডিয়া/এমএসএ

No comments:

Post a comment

নিউজের নীচে। বিজ্ঞাপনের জন্য খালী আছে

Pages