চৌদ্দগ্রামে উজিরপুরে চুরির ঘটনার সুষ্ঠু তদন্তের দাবী জানাতে সড়কে জনতা - Ekushey Media bangla newspaper

Breaking News

Home Top Ad

এইখানেই আপনার বা প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ: 01915-392400

নিউজের উপরে বিজ্ঞাপন

Wednesday, 15 April 2020

চৌদ্দগ্রামে উজিরপুরে চুরির ঘটনার সুষ্ঠু তদন্তের দাবী জানাতে সড়কে জনতা



এম এ হাসান, কুমিল্লা:
কুমিল্লা চৌদ্দগ্রাম উপজেলায় উজিরপুর ইউনিয়ন এর বলহরা গ্রামে ১৪ই এপ্রিল মঙ্গলবার একটি চুরির ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত করার দাবী জানাতে ইউনিয়ন এর মিয়াবাজার সাতবারিয়া দাতামা সড়কের বলহরা গ্রামে প্রশাসনের পদক্ষেপ গ্রহণ করার আবেদন জানানোর লক্ষে রাস্তায় উঠেছে স্থানীয় জনতা।
সরজমিন এ দেখা যায় যে ১১ই এপ্রিল হওয়া একটি ঘটনার অভিযোগ দায়ের এর পরিপ্রেক্ষিতে গতকাল স্থানীয় চৌদ্দগ্রাম থানা পুলিশের কর্মরত এসআই কামাল হোসেন সঙ্গীয় পুলিশ উপজেলার উজিরপুর ইউনিয়নের বলহরা গ্রামে অভিযোগ দায়ের করা সাদেক মাষ্টার গংদের বাড়ীতে প্রাথমিক তদন্ত করতে আসে।
উল্লেখ্য গত ১১ই এপ্রিল  একই গ্রামের সাদেক মাষ্টার গংদের ২টি গরু ও ২টি ছাগল চুরির ঘটনায় আটককৃত তাদের ফার্মে কাজ করা রিমন নামের এক যুবক উক্ত চুরির ঘটনা স্বীকার ও তার কথায় ২টি ছাগল উদ্ধার করা হয়,কিন্তু স্থানীয় দের সামনে উক্ত চুরির ঘটনায় সহযোগিতা করেছে বলে ইউনিয়ন এর ইউপি সদস্য আব্দুল জলিল খাজা মেম্বার এর নামটি চোর প্রকাশ করে।তাৎক্ষণিক উপস্থিত গন্যমান্য ব্যক্তি সহ ইউনিয়ন পরিষদের ইউপি চেয়ারম্যান জয়নাল আবেদীন খোরশেদ এর নিকটও ইউপি সদস্য আব্দুল জলিল খাজা বলেন এই ঘটনার সাথে তার কোন সম্পৃক্ততা নেই,এবং উদ্দেশ্য প্রবনিত ভাবে তাকে ইচ্ছে করে মালিক পক্ষ গন এই ঘটনায় ফাসানোর চেষ্টা করছে।উক্ত চুরির ঘটনার সূত্রে গরুর মালিক পক্ষ থেকে সফিউর রহমান কিশোর নামের এক যুবক বাদী হয়ে আটককৃত রিমন, সদর দক্ষিণ উপজেলার আবুল মিয়া, উজিরপুর ইউনিয়ন পরিষদ এর ইউপি সদস্য আব্দুল জলিল খাজা মেম্বার সহ 
অজ্ঞাত ৪/৫ জনকে আসামি করে নিকটস্থ চৌদ্দগ্রাম থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন।উক্ত অভিযোগ দায়ের এর প্রাথমিক তদন্ত করার লক্ষে গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে ঘটনাস্থলে আসেন চৌদ্দগ্রাম থানা পুলিশের এসআই কামাল হোসেন, এসময় পুলিশ ও স্থানীয় গণমাধ্যম কর্মী অভিযোগ দায়ের করা গরুর মালিক পক্ষের ফার্ম ও ঘটনার প্রাথমিক বিবরণ শুনে আসার পথে ই বলহরা গ্রামের স্থানীয় বিভিন্ন পর্যায়ের জনগণ একত্রিত হয়ে তদন্ত কর্মকর্তার নিকট সঠিক সুষ্ঠু তদন্ত করার দাবী জানায়।
এসময় উপস্থিত জনগণের পক্ষ থেকে তদন্ত কর্মকর্তা এসআই কামাল হোসেন এর নিকট আবদেন করেন চৌদ্দগ্রাম উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড কাউন্সিল এর সদস্য সচিব আব্দুল আজিজ,ইউনিয়ন মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার নির্মল সাহা, উজিরপুর ইউনিয়ন শ্রমিক লীগের সভাপতি সাবেক ইউপি সদস্য  আবু জাফর মুন্সি।
এসময় তারা উক্ত ঘটনায় আটককৃত চোর এর বক্তব্য ইউপি সদস্য আব্দুল জলিল খাজার সাথে মোবাইলে যোগাযোগ হয়েছিলো,বা সে এই কাজে সহযোগী হিসেবে ছিলো,এই বিষয় গুলি প্রশাসনিক একটি সুষ্ঠু তদন্তের দাবী জানায়।এবং এসময় বিভিন্ন পর্যায়ের জনতার বক্তব্য একটিই পুলিশের তদন্তের মাধ্যমে তারা অবগত হতে চায় সত্যি কি এই ঘটনায় ইউপি সদস্য জড়িত নাকি তাকে একটি চক্রান্তের মাধ্যমে ফাঁসানো হচ্ছে।
এসময় অভিযোগে নাম থাকা ইউপি সদস্য আব্দুল জলিল খাজা পুলিশের উপস্থিতি তে আবারও চ্যালেন্জ করে বলেন, যদি এই চোরের কথায় তার মোবাইলে আমার কল পাওয়া কিংবা পুলিশ প্রশাসনের তদন্তে আমার জড়িত থাকার বিষয় টি প্রমাণিত হয় আমাকে যে শাস্তি দেওয়া হবে আমি মাথা পেতে নেব,কিন্তু আমার জড়িত থাকার বিষয় টি প্রমাণিত না হলে কেন আমাকে এভাবে উদ্দেশ্য প্রবনিত ভাবে সমাজের মানুষের নিকট অপমান করা হলো সেই বিষয় টির বিচার আমি প্রশাসনের নিকট দাবী করছি।
এসময় তদন্তে আসা পুলিশের এসআই কামাল হোসেন, উৎসুক জনগন কে সামাজিক নিরাপত্তা বজায় রেখে পরিস্থিতি শান্ত করে বলেন, আমরা প্রাথমিক পর্যায়ে তদন্ত করতে আসছি আপনারা নিশ্চিত থাকুন আমাদের ওসি সাহেব সহ এই ঘটনার সঠিক সুষ্ঠু তদন্ত করা হবে।
এবং তিনি উপস্থিত জনতা ও গণমাধ্যম কর্মী দের  আশ্বস্ত করেন সঠিক তদন্তে রহস্য উদঘাটন করা হবে উক্ত ঘটনার সাথে কারা জড়িত ছিলো।
পুলিশের কর্মকর্তা ঘটনাস্থল ত্যাগ করার পর উপস্থিত গণমাধ্যম কর্মীর মাধ্যমে উক্ত দায়ের কৃত অভিযোগ ও ঘটনার বিষয় টি সঠিক সুষ্ঠু তদন্ত করার জন্য নিকটস্থ চৌদ্দগ্রাম থানার অফিসার ইনচার্জ ওসি আবদুল্লাহ আল মাহফুজ কে অনুরোধ বার্তা প্রদান করা হয়।
গত ১১ ই এপ্রিল থেকে উক্ত ঘটনাকে কেন্দ্র করে এলকায় জনসাধারণের নিকট টান টান উত্তেজনা বিরাজ করছে, সকলের সাথে আমাদের ও প্রানের দাবী উক্ত চুরির ঘটনার মূল রহস্য উদঘাটন করা হউক চৌদ্দগ্রাম থানা পুলিশের সুদক্ষ তদন্তে।



একুশে মিডিয়া/এমএসএ

No comments:

Post a comment

নিউজের নীচে। বিজ্ঞাপনের জন্য খালী আছে

Pages