ফটোসেশান নয় কৃষকের মুখে হাসি ফোটাতে চৌদ্দগ্রামে আসলো আধুনিক মেশিন - Ekushey Media bangla newspaper

Breaking News

Home Top Ad

এইখানেই আপনার বা প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ: 01915-392400

নিউজের উপরে বিজ্ঞাপন

Friday, 1 May 2020

ফটোসেশান নয় কৃষকের মুখে হাসি ফোটাতে চৌদ্দগ্রামে আসলো আধুনিক মেশিন


এম এ হাসান, কুমিল্লা:


চলমান ভয়াবহ করোনা মহামারী তে শ্রমিক সংকটে থাকা কৃষক এর মুখে হাসি ফোটাতে কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে আসলো আধুনিক ২ টি মেশিন। করোনা ভাইরাস সংক্রমণরোধে দেশের বিভিন্ন জেলা লকডাউন থাকায়  চৌদ্দগ্রামে এ বছর প্রোযাপ্ত পরিমান আসেনি বহিরাগত শ্রমিক।
এ উপজেলায় কৃষকের স্বপ্নের সোনালী ধান ঘরে তুলতে দেখা দিয়েছে কৃষি শ্রমিক সংকট।অন্যদিকে ধান কাটা নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ সাইটে ফটোসেশান করে সমালোচনার দৃশ্য ও দেখা দিয়েছে।তারই ধারাবাহিকতায় কৃষকের বোরো ধান ঘরে তুলতে বর্তমান সরকারের ভর্তকি মূল্যে উপজেলার কৃষকদের মাঝে দেওয়া হয়েছে ধান কাটার ২টি আধুনিক যন্ত্র (কম্বাইন হারভেস্টার) মেশিন।
যার ফলে ঘন্টাখানেকের মধ্যে এবং অর্ধেক খরচে কৃষক তার এক একর জমির ধান কেটে ও মাড়াই করে ঘরে ফিরতে পারবেন।
ইতিমধ্যে চৌদ্দগ্রামে সনাতন পদ্ধতির পরিবর্তে যান্ত্রিক পদ্ধতিতে বোরো ধান কাটা ও মাড়াই শুরু হয়েছে।
শুক্রবার সকালে উপজেলার শ্রীপুর ও কাশিনগর ইউনিয়নের বিভিন্ন মাঠে কম্বাইন হারভেস্টার যন্ত্রের মাধ্যমে বোরো ধান কর্তনের উদ্বোধন করেন প্রধান অতিথি চৌদ্দগ্রাম পৌরসভার মেয়র মিজানুর রহমান মিজান, চৌদ্দগ্রাম উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাসুদ রানা সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চৌদ্দগ্রাম উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান এবিএমএ বাহার, উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবীদ আবদুল্লাহ আল মামুন,শ্রীপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শাহ জালাল মজুমদার, অন্যন্যাদের মধ্যে এসময় উপস্থিত ছিলেন উপ-সহকারী কৃষি অফিসার মোঃ আতিকুর রহমান।
কম্বাইন হারভেস্টার গ্রহীতা তোফায়েল ও ইদ্রিস মিয়ার এলাকার কৃষক কৃষাণীবৃন্দ।প্রধান অতিথি বলেন, করোনা ভাইরাসের কারণে চৌদ্দগ্রাম উপজেলায় বোরো ফসল ঘরে তুলতে শ্রমিক সংকট দেখা দিতে পারে। আর এই আশংকায় যান্ত্রিক পদ্ধতিতে ফসল কর্তন ও মাড়াই শুরু হয়েছে।
ইতিমধ্যে চৌদ্দগ্রাম উপজেলায় বর্তমান সরকারের ভর্তুকি মূল্যে কম্বাইন হারভেস্টার, রিপার সহ বিভিন্ন কৃষি যন্ত্র বিতরণ করা হয়েছে। এই যন্ত্র দিয়ে স্বল্প খরচে ঘণ্টায় এক একর জমির ফসল কর্তন ও মাড়াই করতে পারবে কৃষক।
উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ আবদুল্লাহ আল মামুন জানান, উপজেলার কোথাও বোরো ধান সংগ্রহে শ্রমিক সংকট দেখা দিলে উপজেলা কৃষি অফিসার অথবা নিজ দায়িত্বে থাকা উপ সহকারী কৃষি অফিসার অথবা কম্বাইন হারভেস্টার গ্রহীতা তোফায়েল ও ইদ্রিস মিয়ার সাথে কৃষকরা যোগাযোগ করে অল্প খরচে এবং দ্রুত সময়ের মধ্যে বোরো ধান কাটা ও মাড়াইয়ের সেবা নিতে পারেন।



একুশে মিডিয়া/এমএসএ

No comments:

Post a Comment

নিউজের নীচে। বিজ্ঞাপনের জন্য খালী আছে

Pages