লোহাগাড়ার বটতলী শহরের সুন্দর ও পরিচ্ছন্ন চেহারা ফিরে আসছে মিজানের তৎপরতায় - Ekushey Media bangla newspaper

Breaking News

Home Top Ad

এইখানেই আপনার বা প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ: 01915-392400

নিউজের উপরে বিজ্ঞাপন

Tuesday, 8 September 2020

লোহাগাড়ার বটতলী শহরের সুন্দর ও পরিচ্ছন্ন চেহারা ফিরে আসছে মিজানের তৎপরতায়

মোহাম্মদ ইলিয়াছ, বিশেষ প্রতিনিধি:
দক্ষিণ চট্টগ্রামের সেরা বাণিজ্যিক কেন্দ্র   হিসেবে  পরিচিত লোহাগাড়া বটতলী মোটর স্টেশন। উপজেলার প্রাণকেন্দ্রে অবস্থিত এই শহরের উপর দিয়ে চলে গেছে চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়ক।
বটতলী শহরে রয়েছে বেশ কয়েকটি অত্যাধুনিক মার্কেট ও অসংখ্য দোকান-পাট। রয়েছে ২০ টির অধিক বিভিন্ন বাণিজ্যিক ব্যাংকের শাখা। ফলে এটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ শহরে পরিণত হয়েছে বিধায় শহরটিতে প্রতিনিয়ত প্রচুর ময়লা-অার্বজনা জমে এবং শহরটির  মহাসড়কের  দু পাশের ফুটপাত দখল ও বড় বড় গাড়ি অযথায় দাঁড়িয়ে থাকার কারণে অসুন্দর ও বিশৃঙ্খল শহরে পরিণত হয়েছে।
এ অবস্থায় বটতলী শহরে যানজট নিরসন ও  পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন শহরে পরিণত করার নবগঠিত বটতলী শহর পরিচালনা কমিটি  যানজট নিরসনসহ পরিস্কার- পরিচ্ছন্ন অভিযান কার্যক্রম শুরু করেছে।
বটতলীকে পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন ও যানজট নিরসনের জন্য দায়িত্ব দেয়া হয় শহর পরিচালা কমিটির সদস্য মো: মিজানুর রহমান মিজানকে। দায়িত্ব পাওয়ার পর থেকে তিনি  নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। গত দুই দিনে তিনি বটতলী শহরে অবিরাম দিন-রাত কাজ করে শহরকে একটি পরিচ্ছন্ন চেহারায় আনতে সক্ষম হয়েছেন। শহরটির অলিতে-গলিতে পরিচ্ছন্ন কর্মীর সাথে তিনি নিজেই পরিচ্ছন্ন কর্মী হয়ে কাজ করছেন।
সড়কের পাশে অবৈধভাবে অবস্হানরত ফুটপাত দখলমুক্ত করতে কার্যক্রম চালাচ্ছেন তিনি। সকলের সহযোগিতা  চ তিনি বটতলী শহরকে পরিচ্ছন্ন শহরে পরিণত করেত সক্ষম হচ্ছেন বলে তিনি জানান। তিনি সাংবাদিকদেরকে জানান, তিনি কথায় নয়, কাজে বিশ্বাসী।
দায়িত্ব পাওয়ার পর থেকে বটতলী শহরকে একটি পরিচ্ছন্ন শহর হিসেবে উপহার দিতে অবিরাম রাত-দিন কাজ করে যাচ্ছেন। মাননীয় এমপি প্রফেসর ড. আবু রেজা মুহাম্মদ নেজাম উদ্দিন নদভী মহোদয় আমাদের নব গঠিত কমিটিকে নির্দেশনা দিয়েছেন যে বটতলী শহর যেন একটি পরিচ্ছন্ন শহরে পরিণত হয়। তাই বটতলী শহরকে পরিচ্ছন্ন শহরে রুপান্তরের জন্য কাজ করে যাচ্ছি। সকলের ভালবাসা, আন্তরিকতা ও সহযোগিতায় বটতলী শহর থাকবে সর্বদা পরিচ্ছন্ন শহর।
 
 
 

 


একুশে মিডিয়া/এমএসএ

No comments:

Post a comment

নিউজের নীচে। বিজ্ঞাপনের জন্য খালী আছে

Pages