পলাশবাড়ীতে মটর শ্রমিক ইউনিয়নের নির্বাচনকে কেন্দ্র করে ২ আ.লীগ নেতার দন্দ্ব চরমে! - Ekushey Media bangla newspaper

Breaking News

Home Top Ad

এইখানেই আপনার বা প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ: 01915-392400

নিউজের উপরে বিজ্ঞাপন

Sunday, 9 February 2020

পলাশবাড়ীতে মটর শ্রমিক ইউনিয়নের নির্বাচনকে কেন্দ্র করে ২ আ.লীগ নেতার দন্দ্ব চরমে!


একুশে মিডিয়া, গাইবান্ধা জেলা প্রতিনিধি:>>>
গাইবান্ধা জেলার পলাশবাড়ী উপজেলা আওয়ামীলীগের দুই তরুন উড্ডীয়মান নেতার মধ্যে এবার নির্বাচনী যুদ্ধ লাগিয়ে গ্রীন রুমে বসে খেলা উপভোগ করছেন সিনিয়র নেতৃবৃন্দ এমনটাই দাবি করেছেন তৃনমুল আওয়ামীলীগের নেতাকর্মী ও সমর্থক। ফলে এতে করে একদিকে যেমন দীর্ঘদিনের একটি সম্পর্কের ইতি ঘটছে।  অন্যদিকে উপজেলা আওয়ামীলীগের গ্রুপিং চিরস্থায়ী ও ভয়াবহ  রুপ ধারন করছে।
সরেজমিন তথ্যানুসন্ধানে জানায়, পলাশবাড়ী উপজেলা আওয়ামীলীগ শীর্ষ নেতারা এক একজন একটি স্থান ধরে আছেন।
সভাপতি সাধারণ সম্পাদক ব্যতিত যারা রয়েছেন সবাই কোন না কোন একটি স্থান আগলে ধরে নেতৃত্ব দিয়ে আসছেন।
ব্যতিক্রম হয়নি দীর্ঘদিনের রাজনৈতিক সহযোদ্ধা উপজেলা আওয়ামীলীগ যুগ্ম-সাধারন সম্পাদক গোলাম সরোয়ার প্রধান বিপ্লব ও সাংগঠনিক সম্পাদক তৌহিদুল ইসলামের ক্ষেত্রে।
একজন মোটর শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক অপর জন উপজেলার ৫ নং মহদীপুর ইউনিয়নের  চেয়ারম্যান। দুই নেতা স্ব- স্ব স্থান থেকেই উপজেলা আওয়ামীলীগের সক্রিয় কর্মকান্ডে উল্লেখযোগ্য ভুমিকা রেখে আসছেন।ফলে উপজেলা আওয়ামীলীগ অতীতের যেকোন সময়ের তুলনায় শক্তিশালী। 
পলাশবাড়ীর রাজনীতি পরিস্থিতি এমনই অবস্থা বিরাজমান থাকাকালে হঠাৎ এই দুই নেতার মধ্যে গ্রুপিং সৃষ্টির লক্ষে কতিপয় আওয়ামী নেতা গভীর ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়ে পড়ে । শুধু তাই নয় এই ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয় তৃতীয় পক্ষের একটি বৃহৎ রাজনৈতিক শক্তি।
মোটরপরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নে গোলাম সরোয়ার প্রধান বিপ্লবের স্থানে মহদীপুর ইউপি চেয়ারম্যান তৌহিদুল ইসলাম কে প্রার্থী করে একে অপরের প্রতিপক্ষ হিসেবে দাড় করিয়ে অশুভ উম্মাদনায় মেতে ওঠেছেন।
এই দুই নেতার মধ্যে গ্রুপিং সৃষ্টি করতে পারলে পলাশবাড়ী উপজেলা আওয়ামীলীগ অনেকটাই মেরুদণ্ডহীন হয়ে পড়বে। যার প্রতিফলন ইতোমধ্যেই শুরু হয়েছে। একে অপরের পক্ষে হুংকার ছাড়ছে। যা হয়তো ভবিষ্যতে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে রুপ ধারন করবে।শেষ পর্ষন্ত একে অপরের প্রতিপক্ষ হিসেবে অটল থাকলে তা ভবিষ্যত আওয়ামী লীগের রাজনীতির জন্য হুমকি হয়ে দাড়াবে।
যদিও শ্রমিক সংগঠন কোন রাজনৈতিক দল নিয়ন্ত্রন করে না তবু উপজেলা আওয়ামীলীগের উচিত এই দুই নেতার সম্পর্ক চির অটুট রাখতে তাদের মধ্যে সমন্বয় সাধন করা। নয়তো বিধি বাম!! এর খেসারত উপজেলা আওয়ামীলীগ নেতৃবৃন্দকেই দিতে হবে বলে মনে করেন স্থানীয় বোদ্ধারা ।







একুশে মিডিয়া/এমএসএ

No comments:

Post a comment

নিউজের নীচে। বিজ্ঞাপনের জন্য খালী আছে

Pages