পেকুয়ায় বেড়েই চলছে মাথা ন্যাড়া করার ধুম! - Ekushey Media bangla newspaper

Breaking News

Home Top Ad

এইখানেই আপনার বা প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ: 01915-392400

নিউজের উপরে বিজ্ঞাপন

Sunday, 12 April 2020

পেকুয়ায় বেড়েই চলছে মাথা ন্যাড়া করার ধুম!



এইচ এম শহীদ, পেকুয়া থেকে:
সারাবিশ্বে এখন প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের আতঙ্ক বিরাজ করছে। এর ভয়াবহতা মহামারি আকারে ছড়িয়ে পড়ছে। বাংলাদেশেও এর তীব্রতা প্রকট আকার ধারণ করেছে।

ইতোমধ্যে কক্সবাজার জেলার পাড়া-মহল্লায় অনেক স্থানে লকডাউন করা হয়েছে। মরণব্যাধি ভাইরাস থেকে বাঁচার জন্য মানুষ সবসময় মাস্ক, হ্যান্ড গ্লাভস ও স্যানিটাইজার ব্যবহার করছে।
তবে এই এলাকায় করোনাভাইরাস থেকে রেহাই পেতে অনেককেই মাথা ন্যাড়া করতে দেখা গেছে। ইতোমধ্যে অনেকেই একসাথে মাথা ন্যাড়া করে তাদের ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছাড়ছেন, এতে অনেকই তাদের এ ধরনের সতর্কতা অবলম্বন করার জন্য প্রশংসায় ভাসাচ্ছেন।

পেকুয়া উপজেলার প্রত্যেকটি  গ্রামের চাকরিজীবী, ছোট বড়, তরুণরা মাথা ন্যাড়া করে দলগত ছবি ফেসবুকে পোস্ট করে  লিখেছেন- আজ টিন লাগালাম, টিন মারলাম, কেম হলো এই সব উক্তি। এমন লকডাউনের সময়  সেলুন  খোলা  না থাকায়  মাথাও সেইভ কইরা পেললাম।
মাথা ন্যাড়া করার ব্যাপারে জানতে চাইলে তাঁরা বলেন, করোনাভাইরাস যাতে সংক্রমণ না করতে পারে সে জন্য বন্ধুদের সাথে নিয়ে মাথা ন্যাড়া করেছি। এতে গরমে মাথা ঠান্ডাও থাকবে এবং চুল থেকে ভাইরাস সংক্রমিত হতে পারবে না।
এছাড়া অনেকেই  দলবেঁধে ছবি পোস্ট করছেন ফেসবুকে।
এদের সবার একই রকম বক্তব্য, চুলের মাধ্যমে যাতে করোনাভাইরাস সংক্রমণ না করতে পারে তাই তারা মাথা ন্যাড়া করেছেন। আর গরম ও বর্তমান সময় বাড়িতে থাকতে হচ্ছে ।
এক জন সেলুন কর্মচারী বলেন- এই দুর্যোগে  সারা দেশের অবস্থা লকডাউন। সব দোকান পাট বন্ধ করা হয়েছে আমাদের দোকান ও বন্ধ তাই গ্রামে গ্রামে গিয়ে সেইভ করি এবং বেশিরভাগ তরুণরা চুল কাটে না মাথা ন্যাড়া করে থাকেন । এক জন তরুণ বলেন- মাথা ন্যাড়া করলে অনেক দিন পযন্ত সেলুনে যেতে হবে না, আমরা বন্ধু বন্ধুরা মিলেমিশে মাথা ন্যাড়া করে থাকি বেশি ভাগ।
তবে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, মাথা ন্যাড়া করার জন্য ডাক্তারদের কোনোরকম পরামর্শ নেই, নিজ নিজ সচেতনতাবোধ থেকেই তারা মাথা ন্যাড়া করছেন।



একুশে মিডিয়া/এমএসএ

No comments:

Post a comment

নিউজের নীচে। বিজ্ঞাপনের জন্য খালী আছে

Pages