বাঁশখালীতে সামাজিক কোন্দলের জের ধরে দু’পক্ষের সংঘর্ষে নিহত ১ ও আহত ৭ - Ekushey Media bangla newspaper

Breaking News

Home Top Ad

এইখানেই আপনার বা প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ: 01915-392400

নিউজের উপরে বিজ্ঞাপন

Monday, 25 May 2020

বাঁশখালীতে সামাজিক কোন্দলের জের ধরে দু’পক্ষের সংঘর্ষে নিহত ১ ও আহত ৭

সৈকত আচার্য্য, বিশেষ প্রতিবেদক:
বাঁশখালীর বাহারছড়া ইউনিয়নের রত্নপুর গ্রামে সামাজিক কোন্দলের জের ধরে দু’পক্ষের সংঘর্ষে এরফানুল হক (৩২) নামে যুবক নিহত হয়েছে। এ ঘটনায় আহত হয়েছে অন্তত ৭ জন। তাদের মধ্যে আশংকাজনক অবস্থায় ২ জনকে চমেক হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। সোমবার (২৫ মে) বিকাল ৩ টার দিকে এ সংঘর্ষের ঘটনাটি ঘটে। এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৫ জনকে আটক করেছে পুলিশ। ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। পুলিশের দাবি পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে। 
স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, বাহারছড়ার ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ডের রত্নপুর গ্রামে পূর্ব শত্রুতা ও সামাজিক কোন্দলের জের ধরে দীর্ঘদিন থেকে দুধু মিয়ার ছেলে কালুর নেতৃত্বাধীন ৮০ জনের একটি গ্রুপের সাথে নিহত এরফানুল হকের পিতা হাফেজ নুরুল ইসলাম গংদের সাথে বিরোধ চলে আসছিল। এ বিরোধের জের ধরে ঈদের নামাজের শেষে সোমবার সকাল ১১ টার দিকে দুই পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা ও ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে।

খবর পেয়ে বাহারছড়া পুলিশ ফাঁড়ির পরিদর্শক আজিজুল বারি পুলিশ ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। পরবর্তীতে পুলিশ চলে গেলে বিকাল ৩ টার দুইপক্ষের লোকজন দা, কিরিচ, লাঠি নিয়ে পুনরায় সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। এ সময় গুরুতর আহত হয় হাফেজ নুরুল ইসলামের ছেলে এরফানুল হক (৩২), আলী আহমদের ছেলে মো. মুন্সি আলম (৫৫), দুধু মিয়ার ছেলে মো. মুসা (৬০), ফজল আহমদের ছেলে জাফর আহমদ (৬৫), মৃত ছাবের আহমদের ছেলে নুর মোহাম্মদ (৩০), নুরুল ইসলামের ছেলে এমরান (২৯), ফরিদ আহমদের ছেলে গিয়াস উদ্দিন (২২)।
আহতদেরকে বাঁশখালী হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পথে নুরুল ইসলামের ছেলে এরফানুল হকের মৃত্যু ঘটে বলে জানান জরুরী বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক। অপরাপর আহতদের মধ্যে আশংকাজনক অবস্থায় আলী আহমদের ছেলে মো. মুন্সি আলম ও দুধু মিয়ার ছেলে মো. মুসাকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। 
বাহারছড়া ইউনিয়নের রত্নপুর গ্রামের ইউপি সদস্য মো. এবাদুল্লাহ একুশে মিডিয়াকে বলেন, ‘সামাজিক কোন্দলের জের ধরে দু’পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। সকালে ঈদ জামাতের পর উত্তেজনা দেখা দিলে পুলিশসহ স্থানীয়রা বিরোধ সমাধানের চেষ্টা চালায়। নিহত এরফানুল হকের ১ ছেলে ১ মেয়ে রয়েছে। চট্টগ্রাম নগরীর কাঠগড় এলাকায় তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান রয়েছে।’
এ ব্যাপারে বাঁশখালী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. রেজাউল করিম মজুমদার একুশে মিডিয়াকে বলেন, ‘সামাজিক বিরোধের জের ধরে এ ঘটনাটি ঘটেছে। এ ঘটনায় ১ জন মারা গেছে। লাশ ময়না তদন্তের জন্য ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে। ঘটনাস্থল হতে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৫ জনকে আটক করা হয়েছে। এছাড়াও ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। ঘটনার সাথে জড়িত সকলকে দ্রুত আইনের আওতায় নিয়ে আসা হবে।’ 



একুশে মিডিয়া/এমএসএ

No comments:

Post a comment

নিউজের নীচে। বিজ্ঞাপনের জন্য খালী আছে

Pages