পেকুয়ায়- শব্দ দূষণ ও ধুলোবালিতে অতিষ্ঠ এলাকাবাসী - Ekushey Media bangla newspaper

Breaking News

Home Top Ad

এইখানেই আপনার বা প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ: 01915-392400

নিউজের উপরে বিজ্ঞাপন

Monday, 1 February 2021

পেকুয়ায়- শব্দ দূষণ ও ধুলোবালিতে অতিষ্ঠ এলাকাবাসী

এইচ এম শহীদ পেকুয়া থেকে:

কক্সবাজার পেকুয়া উপজেলার প্রায়  নিত্যদিন চলাচলের সময় মাইকের শব্দ দূষণের পাশাপাশি উপজেলা প্রান গ্রামীন জনপদের পাকা-কাঁচা রাস্তাগুলোর বেহাল দশা সৃষ্টি করেছে এবং তার ধুলোবালিতে উপজেলাবাসীকে অতিষ্ঠ করে তুলেছে।প্রতিদিন এসব ট্রাক ট্রলিতে বালু, মাটি, ইট বা অন্যান্য মালামাল পরিবহন করা হচ্ছে।প্রায় ক্ষেত্রেই অপ্রাপ্ত বয়স্ক এবং অদক্ষ ড্রাইভারগন এসব গাড়ি  চালিয়ে থাকে।

তাদের ট্রাফিক আইন-কানুন সম্পর্কেও তেমন ধারণা নেই বললেই চলে।অন্যদিকে  ভর্তি, মাহফিল, প্রাইভেট  হাসপাতালের মাইকিং শব্দ হর্ণে রাস্তার উভয় পাশের বসতবাড়ির লোকজন চরম ভাবে দূর্বিসহ জীবন যাপন করতে বাধ্য হচ্ছেন।

উপজেলার বিভিন্ন স্থানের আবাদি জমি বা নদী-নালা থেকে অবৈধ ভাবে ভেকু বা ড্রেজার মেশিন দিয়ে উত্তোলিত বালু মাটি নিয়ে বিভিন্ন এলাকার পুকুর, জলাশয়, বসতভিটা ভরাট করা হচ্ছে বা ইটভাটা সমুহে সরবরাহ করা হচ্ছে।প্রতিদিন ভোর হতে গভীর রাত পর্যন্ত বা কোন কোন সময় সারা রাতব্যাপী দ্রুতগতিতে তান্ডব চালিয়ে যাচ্ছে।

এতে দিনের বেলায় রাস্তার পাশে থাকা স্টেশন, বাজারে আসা যাওয়া জনসাধারণের  কাজের অসুবিধা সহ সাধারণ মানুষের  নিরাপদে রাস্তায় চলাচল করতে পারছে না।দ্রুতগতির সব ট্রাক, টমটম, অটো রিক্সা  দুর্ঘটনার আশঙ্কা নিয়ে রাস্তায় চলছে।অপরদিকে রাস্তার কাছে থাকা মসজিদগুলোর নামাজিরা অনেক সময় এসব ট্রাকও মাইকিং এর   বিকট শব্দে ঠিকমত নামাজ আদায় করতে পারছে না।

বালু মাটি ভর্তি ট্রাক মাইকিং এর বিকট শব্দে আশেপাশের বসতবাড়ির ছোট-ছোট শিশুরা দিনের বেলা ঘুমোতেও পারে না। বিকট শব্দ শুনে শিশুরা সহজেই ভয় পেয়ে কান্না করে।  ধুলোবালিতে রাস্তার পাশের পরিবেশ দূষিত হচ্ছে। যার ফলে এসব এলাকার লোকজন শ্বাসকষ্ট জনিত রোগসহ নানা জটিল রোগে আক্রান্ত হচ্ছে।চলতি মাসে শুরু হওয়া এসএসসি পরীক্ষার্থী সাধারণ শিক্ষার্থীরা নিয়মিতভাবে পড়াশুনাও করতে পারছেনা।

এমনকি অতি শব্দে বিভিন্ন সরকারি বা বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের অফিসিয়াল কাজকর্মও ব্যহত হচ্ছে। শব্দ ধুলোবালির কারণে  অসুস্থ্য ব্যক্তিরা আরো অসুস্থ্য হয়ে পড়ছে।অপরদিকে অতিমাত্রায় এসব অবৈধ গাড়ি চলাচলে সরকারের কোটি কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত গ্রামীণ জনপদের রাস্তাঘাট ভেঙে গিয়ে যাতায়াতের অযোগ্য হয়ে পড়েছে। পেকুয়া উপজেলার  জানান, ট্রাক অযথা গাড়ির ভয়ে রাস্তায় ঠিকমত যাতায়াত করা য়ায় না।

রাস্তার পথচারী ছাড়াও ওইসব রাস্তায় চলাচলকারী ছোট যান রিকসা, ভ্যান, ব্যাটারিচালিত ইজিবাইক গুলোকে ট্রাকের জন্য রাস্তার পাশে দাড়িয়ে থাকতে হয়। ড্রাইভিং লাইসেন্স বিহীন অনভিজ্ঞ কম বয়সী চালকেরা স্বগৌরবে পাল্লা দিয়ে দ্রুত গতিতে গাড়ি চালাতে গিয়ে নানা রকম দূর্ঘটনাসহ ধারে-কাছের বসতবাড়ি জানমালের ব্যাপক ক্ষতি করছে। একদিকে যেমন শব্দ পরিবেশ দূষণ, অন্যদিকে নানা ক্ষয়ক্ষতি করার কারণে  ইতোমধ্যেই এলাকায় আলোচনা-সমালোচনার ঝড় বইতে শুরু করেছে। ব্যাপারে উপজেলা  প্রশাসনের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন পেকুয়ার  এলাকাবাসী

 

 

 একুশে মিডিয়া/এমএসএ

 

No comments:

Post a comment

নিউজের নীচে। বিজ্ঞাপনের জন্য খালী আছে

Pages